এ এম রিয়াজ কামাল হিরণ,চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃস্বচ্ছল লোকের দায়িত্ব হলো দুঃখী লোকদের পাশে দাঁড়ানো-Professor Mujibur Rahman বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরী আয়োজিত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণকালে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমির ও সাবেক এম.পি. অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এই মন্তব্য করেন।বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও চট্টগ্রাম মহানগরী আমির মুহাম্মদ শাহজাহানের সভাপতিত্বে ও চট্টগ্রাম মহানগরীর সেক্রেটারি অধ্যক্ষ মুহাম্মদ নুরুল আমিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে ভারপ্রাপ্ত আমীর বলেন, আমরা আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী সামান্য কিছু খাবার নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি, প্রয়োজনের তুলনায় যা যৎসামান্য। এতে হয়তো আপনাদের কয়েকদিন চলবে। কিন্তু যে বিপদে আপনারা পড়েছেন তাতে প্রয়োজন বেশি পরিমাণ সাহায্য। এটা কেবল তখনি সম্ভব হবে যখন সমাজের স্বচ্ছল লোকেরা অস্বচ্ছল লোকদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়াবে। ধনীরা গরীব দুঃখীদের পাশে এসে তাদের কষ্ট লাগবে ভুমিকা রাখবে।তিনি আরো বলেন, রিজিকের মালিক আল্লাহ্‌। সেই আল্লাহকে যদি মেনে চলি, আল্লাহর আইন মেনে যদি সমাজ পরিচালনা করি, প্রতিনিয়ত আল্লাহর শুকর আদায়ে থাকি তাহলে এই সমাজে তিনি বরকত নাযিল করবেন। আসমান ও জমিনে রিজিকের সকল দুয়ার খুলে দেবেন। সমাজ সুখ সমৃদ্ধিতে ভরে উঠবে। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সেই চেষ্টাই করে যাচ্ছে। তাই আমাদের সকলকে আল্লাহর আইন চালু করার জন্য চেষ্টা করা উচিৎ যাতে করে সমাজ কল্যাণের পথে পরিচালিত হয়।তিনি হাদীসের উদ্ধৃতি দিতে গিয়ে বলেন- আল্লাহ বলেছেন আমি অভুক্ত ছিলাম, তোমরা আমাকে খাবার দাওনি। আমি পিপাসার্ত ছিলাম, তোমরা পানি দাওনি। আমি অসুস্থ ছিলাম, তোমরা আমার সেবা করনি। তখন বান্দা বলবেন হে আল্লাহ আপনি তো রাব্বুল আলামীন, আপনাকে আমরা কীভাবে সাহায্য করবো? তখন আল্লাহ বলবেন- আমার উমুক বান্দা অভুক্ত ছিলো তাকে খাবার দিলে আমাকে দেয়া হতো, তাকে পানি দিলে আমাকে দেয়া হতো, তাকে সেবা করলে আমাকে করা হতো। এই কথা জানার পর আমাদের উচিৎ মানুষকে খাবার দেয়া, চিকিৎসা দেয়া, বিপদে সাহায্যের হাত বাড়ানো।সরকারে দায়িত্বহীনতার দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন- যদি জনগণের সরকার থাকতো, নির্বাচিত সরকার থাকতো তাহলে এই বিপদের সময় তারা চুপ থাকতে পারতো না। জনগণের বিপদের সময় যারা চুপ থাকে তারা কখনোই ভালো সরকার হতে পারে না। ভালো সরকার হলো ঐ সরকার যে সরকার জনগণকে ভালোবাসে জনগণও সরকারকে ভালোবাসে। খারাপ সরকার হলো ঐ সরকার যারা জনগণকে ভালোবাসে না। জামায়াত যদি সরকারে যায় তাহলে জনগণকে ভালোবাসবে। ভোট জালিয়াতি করে, দিনের ভোট রাতে করে যারা সরকার গঠন করে তারা কখনো ভালো সরকার হতে পারে না। জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকারই জনগণের কথা মনে রাখে তাই আপনারা দেখেশুনে ভালো সরকার নির্বাচিত করবেন। যে সরকার মানুষের কল্যাণ করবে তাদের নির্বাচিত করুন।উক্ত অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদ্স্য জনাব মোবারক হোসাইন বলেন- এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সময় সরকারের দায়িত্ব ছিলো আপনাদের পাশে দাঁড়ানো। কিন্তু তারা তা না করে উল্টো আমাদের উপর জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে। এতে আপনাদের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে যে সহযোগিতা করা দরকার ছিলো তা আমরা পারছি না। বাধ্য হয়ে সীমিত আকারে আপনাদের সামান্য সহযোগিতার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আপনারা দোয়া করবেন যেন তা বহুলাংশে বৃদ্ধি করতে পারি।সভাপতির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান বলেন- বিপদ-মুসিবত আল্লাহ তায়ালার পক্ষ হতেই আসে। তার অগোচরে কিছুই হয় না। এবারে অতিবর্ষণে চট্টগ্রাম মহানগরীর প্রায় ২৭টি ওয়ার্ড, দক্ষিণ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারসহ অনেকগুলো এলাকা প্লাবিত হয়েছে। অনেক স্থানে এখনো মানুষ পানিবন্ধী আছে। আমরা দোয়া করছি যেন দ্রুত স্বাভাবিক জীবনে সবাই ফিরে যেতে পারে। অনেক কষ্টের মধ্য দিয়ে আপনাদের দিন যাচ্ছে। সামান্য কিছু সহযোগিতা নিয়ে এসেছি। আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করবেন যেন আমরা আরো বেশি পরিমাণে মানুষকে সাহায্য করতে পারি, মানুষের বিপদে পাশে দাঁড়াতে পারি। উত্তরোত্তর যেন মানুষের কল্যাণে ভুমিকা রাখতে পারি।এ সময় নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- চট্টগ্রাম মহানগরী নায়েবে আমীর নজরুল ইসলাম। মহানগরী সহকারী সেক্রেটারি মুহাম্মদ উল্লাহ্‌, এম এফ ইউনুছ, নগর প্রচার সম্পাদক এ.এইচ. এম কামাল শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন চট্টগ্রাম মহানগরী সভাপতি এসএম লুৎফর রহমান সহ নেতৃবৃন্দ।