এস.এম.মাসুম, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

বর্তমান সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবি আদায়ে আজ (২৮-১০-২০২৩) রাজধানীর নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে মহাসমাবেশ করবে বিএনপি। অন্যদিকে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ শান্তি সমাবেশ করবে বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে। মাত্র দেড় কিলোমিটার ব্যবধানে দুই দলের পাল্টা-পাল্টি সমাবেশ ঘিরে রাজধানীতে টানটান উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে গোটা শহরজুড়ে । অনেক প্রতিক্ষার পর গতকাল রাত সাড়ে ৮টায় পছন্দের ভেন্যুতেই আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে ২০ টি শর্তে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। সমাবেশে অংশ নিতে সারা দেশ থেকে বিভিন্নেন দলের নেতাকর্মীরা ঢাকায় এসেছেন। তবে বিএনপি নেতাকর্মীদের আগমনের পথে পথে তল্লাশি, হয়রানি ও আটকের শিকার হতে হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সাম্প্রদায়িক শক্তি নিয়ে অশুভ খেলার পরিকল্পনা আছে বিএনপির। কেউ যাতে অশান্তি করতে না পারে সেজন্যই আওয়ামী লীগ শান্তি সমাবেশের ডাক দিয়েছে। এই সমাবেশটি হবে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ’। অপরদিকে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আমরা সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণভাবে এই মহাসমাবেশ করব। আমাদের মহাসমাবেশের উদ্দেশ্যই হচ্ছে, সরকারকে পদত্যাগ করিয়ে নির্দলীয় সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে বাধ্য করার চেষ্টা করা।’

জানা গেছে, আওয়ামী লীগ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সমাবেশ করবে। এই সমাবেশে প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। অন্যদিকে, বিএনপি বেলা ২টার পরিবর্তে বেলা ১২টা থেকে নয়াপল্টন বিএনপি কার্যালয়ের সামনে মহাসমাবেশ করবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আওয়ামি লীগ জানিয়েছে, তাদের সমাবেশে ২ লাখ লোক জমায়েত ঘটবে। আর বিএনপি জানিয়েছে তাদের সমাবেশে লোক হবে ১ থেকে সোয়া ১ লাখ। এদিকে, জামায়াতে ইসলামীকে সমাবেশের অনুমতি না দিলেও আজ শনিবার মতিঝিলের শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশ করবে বলে জানিয়েছে দলটি। গতকাল দলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ভয়ভীতি উপেক্ষা করে এই মহাসমাবেশে যোগ দিতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির অধ্যাপক মুজিবুর রহমান। এছাড়া বিএনপির যুগপত্ আন্দোলনের শরিক দল ও জোটগুলোও আজ রাজধানীর ১১টি স্থানে সমাবেশ করবে।