নিজস্ব প্রতিনিধি, সিরাজগঞ্জঃ

গত (২অক্টোবর) জেলার সুনামধন্য স্থানীয় দৈনিক যুগের কথা, দৈনিক কলম সৈনিক, দৈনিক শ্যামল বাংলা,দৈনিক সংবাদপত্র, দৈনিক দোলনচাঁপা, দৈনিক সিরাজগঞ্জ খবরসহ বেশ কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টালে “শিয়ালকোল রাতের আধারে ঠিকাদারী অফিসে অগ্নি সংযোগের অভিযোগ” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করেছেন। ১। মোঃ রকিব খন্দকার (২) মোঃ পিন্টু ৩। মোঃ হাসান খন্দকার ৪। মোঃ ফজলু সরকার। তাদের নাম প্রকাশে এক প্রতিবাদ লিপিতে বলেছেন, আমাদের নামে যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভুয়া, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। প্রকৃত ঘটনার সাথে আমরা কোনভাবেই জড়িত নই। অফিসে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়ার নামে যে মিথ্যা নাম দেওয়া হয়েছে মূলত আমরা সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান ও সদস্য। সমাজে আমাদের অত্যন্ত সুনাম রয়েছে। ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী জিয়া ও জিয়ার পরিবারকে নিয়ে একাধিক বিচার শালিসী করতে হয় এলাকার মুরুব্বীদের।

তাদের অপকর্মের প্রতি অতিষ্ঠ হয়ে প্রায় ০২ (দুই) বছর ধরে জিয়া ও জিয়ার পরিবার মৌখিকভাবে সমাজচ্যুত করতে বাধ্য করে এলাকার সমাজ ব্যবস্থাপনা কমিটি। প্রতিবাদকারীগনের মধ্যে অনেকেই এখনও সরকারি চাকুরির সুযোগ রয়েছে ও সুনামধন্য ব্যবসার সাথে জড়িত। বাদীর ঘটনায় আমাদের নাম ঘোষনা হওয়ার পর সমাজ ব্যবস্থাপনা কমিটি, ইউপি চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি, সেক্রেটারীকে অবহিত করলে তারা গতকাল (২ অক্টোবর) সোমবার সন্ধ্যায় খোর্দ্দ শিয়ালকোল মোড় এলাকায় ঘটনার স্বাক্ষী, বাদী বিবাদীগণসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে উপস্থিতি করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেন। বাদীকে বার বার অবহিত করা হলেও উপস্থিতির বিষয়ে অপরাগতা প্রকাশ করে। স্বাক্ষীগণকে তাদের স্বইচ্ছায় বলা হলে তারা এই ঘটনার কিভাবে জড়িত হলো, স্বাক্ষীই কেন করা হলো কে বা কাহারা এর সাথে সম্পৃক্ত কোনভাবেই তারা স্বদত্বর দিতে পারেনি। এ বিষয়ে স্বাক্ষীগণ স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে সাক্ষ্য দিতে রাজি আছেন। কে বা কারা প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য এহেন কর্মকান্ডে লিপ্ত এতে বিবাদীগণের সুনাম ক্ষুন্ন করা হয়েছে। প্রতিবাদকারীগণ আরো বলেন, আমাদের নামে মিথ্যা অপপ্রচার ও ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত করে উল্লেখিত বিষয়টির ব্যাপারে যে মিথ্যা নাম দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে তাহার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী
১। মোঃ রকিব খন্দকার
২। মোঃ পিন্টু
৩। মোঃ হাসান খন্দকার
৪। মোঃ ফজলু সরকার