সবুজ শিকদার,বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ

হেফজ বিভাগে পড়ুয়া ১২ বছর বয়সের এক শিশু ছাত্রকে বলৎকারের অভিযোগে মোংলার আলহাজ্ব কোরবান আলী আলিম মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষক মো: রাসেল কে আটক করেছে মোংলা থানা পুলিশশনিবার (০৭ অক্টোবর ) দুপুরে মোংলার দ্বীগরাজ এলাকা থেকে  আটক করা হয় অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে ।এর আগে শিশু ছাত্রকে তিন মাস যাবৎ বলৎকারের বিষয়টি  ৫ অক্টোবর লিখিত ভাবে মোংলা থানাকে অবহিত করে ওই ছাত্রের মামা।

এর পর পালিয়ে যায় অভিযুক্ত শিক্ষক রাসেল।শনিবার (০৭ অক্টোবর) স্থানীয় আওয়ামীলীগের এক নেতার মধ্যস্থতায় সমঝোতার চেস্টা করে শিক্ষক রাসেল।আর ওই সমঝোতার জন্য  শিশুটির মা ও মামাকেদ্বীগরাজ যেতে বলা হয়পরে পুলিশের পরামর্শে শিশুটির পরিবার দ্বীগরাজযায়।সেখান থেকে আটক করা হয় শিক্ষক রাসেলকে।

মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শামসুদ্দিন আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গত ৫ অক্টোবর নির্যাতনের শিকার হওয়া শিশুটিকে নিয়ে মোংলা থানায় আসে তার আত্বীয়স্বজন।এর পর শিশুটির বক্তব্য শুনে পরিবারের পক্ষ থেকে দেওয়া লিখিত অভিযোগ টি গ্রহন করি।কিন্তু পালিয়ে থাকার কারনে অভিযুক্ত শিক্ষককে আটক করা যায়নি।আজ সমঝোতার জন্য শিশুটির পরিবারকে দ্বীগরাজ নেওয়া হলে সেখান থেকে শিক্ষক রাসেল কে আটক করা হয়।তিনি আরো জানান, আইনানুক সকল কার্যক্রম শেষে  আদালতের মাধ্যমে আটক রাসেল কে কারাগারে পাঠানো হবে।এদিকে শিশুটির মা জানান, তিনি খুলনার রুপসায়শশুর বাড়ীতে থাকেনগত ৫ অক্টোবর তার শিশু সন্তান কান্নাকাটি করতেকরতে তাকে বিষয়টি খুলে বলে।এর পর তিনি তার চাচীকে পাঠিয়ে মাদ্রাসা থেকে সন্তান কে শিশুটির নানার বাড়ীতে নিয়ে আসেন।তিনি অভিযোগ করেন,  স্থানীয় আওয়ামীলীগের এক  নেতা তাকে বিষয়টি সমঝোতা করার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ দিচ্ছেন। তিনি নরপিচাশ শিক্ষক রাসেলের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চান।